ইন্টারনেট ব্যাংকিং কি ? ইন্টারনেট ব্যাংকিং এর সুবিধা ও অসুবিধা

 বর্তমানে এই ডিজিটাল যুগে আমরা মোবাইল ব্যাংকিং এবং ইন্টারনেট ব্যাংকিং এ দুটোর নাম আমরা প্রত্যেকে শুনেছি । আমরা আগের আর্টিকেলে আলোচনা করেছিলাম মোবাইল ব্যাংকিং কি । এবার  আজকে আলোচনা করব ইন্টারনেট ব্যাংকিং কাকে বলে ? ইন্টারনেট ব্যাংকিং এর সুবিধা । ইন্টারনেট ব্যাংকিং এর অসুবিধা  । নেট ব্যাংকিং কেন ব্যবহার করবো ? ইত্যাদি বিষয়

  

ইন্টারনেট ব্যাংকিং কি ? ইন্টারনেট ব্যাংকিং এর সুবিধা ও অসুবিধা
internet banking bangla

ইন্টারনেট ব্যাংকিং কি ? (what is internet banking in Bengali) :

 ঘরে বসে ব্যাংকের যে সাধারণ কাজগুলো ইন্টারনেটের মাধ্যমে করাকেই ইন্টারনেট ব্যাংকিং বলে। internet banking বলতে অনলাইন ব্যাংকিং বা নেট ব্যাঙ্কিং কেও বোঝায়। ব্যাংকের যে কোন কাজ করার জন্য আমাদেরকে সেখানে যেতে হয় যেমন কাউকে টাকা পাঠানো, ব্যাংকে কত টাকা আছে চেক করার জন্য, নিজে টাকা তোলার জন্য ইত্যাদি তো এই সমস্ত কাজ গুলো ঘরে বসে ইন্টারনেটের মাধ্যমে করাকে বলা হয় ইন্টারনেট ব্যাংকিং।

ইন্টারনেট ব্যাংকিং কিভাবে কাজ করে ? (how does internet banking work in Bengali) :

internet banking কাকে বলে আশা করি এটি আপনারা জানতে পারলেন, তারপরে সব থেকে গুরুত্বপূর্ণ প্রশ্ন হচ্ছে ইন্টারনেট ব্যাংকিং কিভাবে কাজ করে

 

• ইন্টারনেট ব্যাংকিং এর জন্য যেকোনো একটি ডিভাইস এর প্রয়োজন হবে হয় মোবাইল, ল্যাপটপ অথবা ট্যাব এবং ভালো ইন্টারনেট পরিষেবা থাকা জরুরি

 

• ইন্টারনেট ব্যাংকিং এর ওয়েবসাইট বা অ্যাপসে ইউজার আইডি এবং পাসওয়ার্ড দিয়ে log in করলে ব্যাংকের প্রায় সমস্ত কাজগুলো ইন্টারনেটের মাধ্যমে করতে পারবে না।

 

নেট ব্যাংকিং একাউন্ট কিভাবে খুলবেন (how to register for netbanking in bengali) :

বলে রাখা ভাল প্রায় 90% ব্যাংকের নেট ব্যাঙ্কিং পরিষেবা আছে। কিছু কিছু ব্যাংকের কিন্তু net banking সিস্টেম নেই ।

 

কিভাবে নেট ব্যাংকিং একাউন্ট খুলবেন এর সম্পূর্ণ প্রসেস নিচের স্টেপ বাই স্টেপ আলোচনা করা হলো

আরও পড়ুন : মোবাইল ব্যাংকিং কি ? মোবাইল ব্যাংকিং এর সুবিধা এবং অসুবিধা ?

• ল্যাপটপ কম্পিউটার বা মোবাইলে internet banking রেজিস্টার করার জন্য user ID এবং password এর প্রয়োজন হয়। এর জন্য আপনাকে ব্যাংকে গিয়ে internet banking application form ফিলাপ করতে হবে এবং তার সঙ্গে আধার কার্ড, ভোটের কার্ডে ইত্যাদি জেরক্স জমা দিতে হবে।

 

• তারপর ব্যাংক অফিসার রা ভেরিফাই করবে এবং সবকিছু ঠিকঠাক থাকলে internet banking এর জন্য আপনাকে user ID এবং password দেবে । ব্যাংক অফিসার আপনাকে যে পাসওয়ার্ডটি দিবে আপনারা বাড়ি এসে সেই পাসওয়ার্ডটি অবশ্যই চেঞ্জ করে নিবেন।

 

• তারপর আপনারা সেই ব্যাংকের নেট ব্যাঙ্কিং apps টি ডাউনলোড করবেন তারপর  ইউজার আইডি এবং পাসওয়ার্ড দিয়ে নেট ব্যাংকিং অ্যাপস টি লগিন করবেন। তারপর থেকে আপনারা খুব সহজেই এটিকে অ্যাক্সেস করতে পারবেন।

 

• আপনার যদি সেই ATM কার থাকে তাহলে আপনি নিজে নিজেই user ID এবং password তৈরি করতে পারবেন। সেই ব্যাংকের ওয়েবসাইটে গিয়ে আপনাকে এগুলো তৈরি করতে হবে।

ইন্টারনেট ব্যাংকিং এর সুবিধা :

ইন্টারনেট ব্যাংকিং এর অনেক সুবিধা রয়েছে সেগুলো নিচে বিস্তারিত আলোচনা করা হলো 

 

•  আপনারা বাড়িতে বসে যেকোনো সময়ে  ইন্টারনেটের মাধ্যমে মোবাইল কম্পিউটার বা ল্যাপটপ দিয়ে আপনার ব্যাংকে কত টাকা রয়েছে সেটা চেক করতে পারবেন। 

 

•  আপনারা যে কোন  সময়ে সেই দেশের যেকোনো জায়গা থেকে যে কাউকে টাকা ট্রানস্ফার করতে পারবেন অর্থাৎ money deposit করতে পারবেন। 

 

• Net Banking  এর মাধ্যমে আপনারা যে কোন বিল pay করতে পারবেন যেমন , electric bell, water bell, এছাড়া অনলাইনে অনেক কিছু বুক করতে পারবেন যেমন gas booking, online ticket book হতে পারে সিনেমার টিকিট, ট্রেনের টিকিট বা বিমানের টিকিট। এছাড়া আপনারা মোবাইল রিচার্জ , কেবিল এর রিচার্জ, ডিসের রিচার্জ করতে পারবেন।

 

•  মার্চেন্ট পেমেন্ট অর্থাৎ QR code scan এর মাধ্যমে যে কাউকে টাকা সেন্ড করতে পারবেন

 

• ইন্টারনেট ব্যাংকিং এর মাধ্যমে আপনারা লোন নিতে পারবেন।

 

• ব্যাংকের চেক বই যদি আপনার ফুরিয়ে যায় তাহলে আপনারা ইন্টারনেট ব্যাংকিং এর মাধ্যমে ব্যাংকের cheque book অর্ডার করতে পারবেন ।

 

•  নতুন ডেবিট কার্ড পিন এর জন্য আপনারা আবেদন করতে পারবেন ।

 

• ব্যাংকের সমস্ত রকম transaction history দেখতে পারবেন 

 

আপনাদেরকে ব্যাংকের সাধারণ কাজের জন্য সেখানে যাওয়ার প্রয়োজন নেই সেই কাজগুলো আপনারা বাড়িতে বসে ইন্টারনেট ব্যাংকিং এর মাধ্যমে যে কোন সময় অর্থাৎ 24×7 করতে পারবেন।

ইন্টারনেট ব্যাংকিং এর অসুবিধা :

internet ব্যাংকিংয়ের সুবিধার তুলনায় disadvantage খুব কম

 

• অনেক সময়ে টেকনিক্যাল প্রবলেম, ব্যাংকের সার্ভারের প্রবলেমের কারণে বা ইন্টারনেট কানেকশন স্লো থাকার ফলে  নেট ব্যাংকিং অ্যাপস ব্যবহার করতে অসুবিধা হয় ।  এর ফলে এর পরিষেবা গুলো পেতে অনেক দেরি হয়।

 

•  নেট ব্যাঙ্কিং এর পাসওয়ার্ড , ইউজার আইডি এবং passcode যদি কেউ জেনে যায় তাহলে যে কেউ আপনার মোবাইল ব্যবহার করে টাকা তুলে নিতে পারবে।

 

• কোন হ্যাকার যদি আপনাকে কোন মেসেজ বা ইমেইলে কোন লিংক দেয় আপনি যদি সেই লিঙ্কে ক্লিক করেন তাহলে আপনার ব্যাংকের টাকা 1 মিনিটে গায়েব হয়ে যেতে পারে সুতরাং আপনারা যে কোনো অপরিচিত মেসেজের বা ইমেইলের কোন লিংকে ক্লিক করবেন না।

ভারতীয় ইন্টারনেট ব্যাংকিং :

ভারতে যেসব ব্যাংক নেট ব্যাঙ্কিং পরিষেবা প্রদান করে সেগুলো নিচে বিস্তারিত আলোচনা করা হলো

 

•  এইচডিএফসি  নেট ব্যাঙ্কিং (HDFC net banking)

 

• এস বি আই নেট ব্যাংকিং (SBI net banking)

 

• ব্যাঙ্ক অফ বরোদা নেট ব্যাঙ্কিং (Bank of Baroda net banking)

 

• আইডিবিআই ব্যাংক  নেট ব্যাঙ্কিং (IDBI Bank net banking)

 

• অ্যাক্সিস ব্যাঙ্ক নেট ব্যাঙ্কিং (Axis Bank net banking)

 

• ইউনিয়ন ব্যাঙ্ক নেট ব্যাঙ্কিং (union Bank net banking) ইত্যাদি

বাংলাদেশ ইন্টারনেট ব্যাংকিং :

বাংলাদেশের যেসব ব্যাংক ইন্টারনেট ব্যাংকিং সার্ভিস প্রদান করে সেগুলো নিয়ে আলোচনা করা হল

 

• সিটি ব্যাংক নেট ব্যাংকিং (Citibank netbanking)

 

• ডাচ বাংলা ব্যাংক ইন্টারনেট ব্যাংকিং (Dutch-Bangla Bank internet banking)

 

• ইস্টার্ন ব্যাংক ইন্টারনেট ব্যাংকিং (Eastern Bank internet banking)

 

•  প্রাইম ব্যাংক ইন্টারনেট ব্যাংকিং (Prime Bank internet banking) ইত্যাদি ।

 

আশা করি আপনারা ইন্টারনেট ব্যাংকিং সম্পর্কে বিস্তারিত ধারণা পেয়েছেন ।  ইন্টারনেট ব্যাংকিং ও মোবাইল ব্যাংকিং এর পার্থক্য খুব বেশি নেই। ইন্টারনেট ব্যাংকিং সম্পর্কে আপনাদের যদি কোন রকমের প্রশ্ন থাকে তাহলে নিচে কমেন্ট করে জানাতে পারেন ধন্যবাদ ।

Leave a Comment